Home Privacy Policy About Contact Disclimer Sitemap
নোটিশ :
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ! সারাদেশে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে । যোগায়োগ করুন : ০১৭৪০৭৪৩৬২০
করোনায় বন্ধ স্কুলের ক্লাসরুমে দোকান

করোনায় বন্ধ স্কুলের ক্লাসরুমে দোকান

নিউজ ডেস্ক :       বেঞ্চের ওপর সাজানো প্রায় পঞ্চাশটি বয়াম। একটির ওপর রাখা হয়েছে আরও একটি। তার মধ্যে শোভা পাচ্ছে বিস্কুট, লজেন্স ও চানাচুর। বেঞ্চের খুঁটির সঙ্গে খাড়া করে বাঁধা হয়েছে বাঁশ। দুই বাঁশের দুই মাথায় রশি টানিয়ে তার সঙ্গে ঝুলানো হয়েছে পাউরুটি, কেক ও চিপস। বেঞ্চের নিচে আছে ডিম, পেঁয়াজ, লবণ ও কোমল পানীয়। মোটকথা- হরেক রকম পণ্যের পসরা, দেখে মনে হবে যেন পুরোপুরি দোকানঘর; কিন্তু আদতে এটি একটি বিদ্যালয়ের পাঠদানকক্ষ। এখানেই দিব্যি ব্যবসা করে যাচ্ছেন এক যুবক।

এমন দোকানঘর বানানো হয়েছে ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার অচিন্ত্যপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। অভিযোগ আছে- টাকার বিনিময়ে বিদ্যালয়ের পাঠদান কক্ষে দোকান ভাড়া দিয়েছেন প্রধান শিক্ষক। অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেন প্রধান শিক্ষক আহাম্মদ আলী বলেন, আমি দোকানঘর ভাড়া দেইনি। রাশিদুল ইসলাম নামে এক যুবক কিছুদিনের জন্য মালামাল নিয়ে ব্যবসা করছেন। তবে অচিরেই এখান থেকে দোকান উঠিয়ে দেওয়া হবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির একটি কক্ষে আসবাব সরিয়ে দোকানঘর বানানো হয়েছে। বেশ কিছুদিন ধরে এখানে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন অচিন্ত্যপুর গ্রামের রাশিদুল। গ্রামের লোকদের অভিযোগ- এই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আহাম্মদ আলী এই পাঠদানের কক্ষটি টাকার বিনিময়ে ভাড়া দিয়েছেন; কিন্তু কীভাবে পাঠদানকক্ষ ভাড়া দিলেন এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

অচিন্ত্যপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. গণি মিয়া বলেন, বিদ্যালয়কক্ষে দোকান বসিয়ে ব্যবসা করা একদমই ঠিক না। প্রতিষ্ঠানে দোকানঘর মেনে নেওয়া যায় না। এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামীম আহাম্মেদ বলেন, কোনোক্রমেই পাঠদানকক্ষে দোকান সাজিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করা যাবে না। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights Reserved
Developed By Cyber Planet BD