Home Privacy Policy About Contact Disclimer Sitemap
নোটিশ :
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ! সারাদেশে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে । যোগায়োগ করুন : ০১৭৪০৭৪৩৬২০
সংবাদ শিরোনাম :
বিরামপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু নওগাঁ-সাপাহারে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন এখন পানিতে ভাঁসছে বিরামপুরে বোরো ধান-চাল সংগ্রহের উদ্বোধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে ধান বোঝাই ট্রাক উল্টে নিহত ২ আহত-৬ চাষী বাজার স্থায়ীকরণের দাবিতে মানববন্ধন রাজশাহীতে কৃষক হত্যার বিচার সহ ১৬ দফা দাবিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ নিরাপদ-বিষমুক্ত আম উৎপাদন, বিপণন ও বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু ও শেখ ফজিলাতুন্নেছা জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনূর্ধ্ব ১৭ বালিকও বালিকা উদ্বোধন প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ডিসি সুলতানার বিরুদ্ধে সাংবাদিক আরিফের করা মামলার তদন্তে পিবিআই
কলকাতা, তুমি কি আমায় দিতে পারবে রমনার স্বাদ : মিথিলা

কলকাতা, তুমি কি আমায় দিতে পারবে রমনার স্বাদ : মিথিলা

রাফিয়াদ রশিদ মিথিলা- ছবি : সংগৃহীত

 বিনোদন ডেস্ক :      বিয়ের পর প্রথম পহেলা বৈশাখে কলকাতায় শ্বশুরবাড়িতে অবস্থান করছেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা। সেখানে বাঙালির প্রাণের এই উৎসবের দিনটি কেমন কাটছে তার? ভারতের সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার জানাচ্ছে, মিথিলা এ বছর পহেলা বৈশাখ উদযাপন করছেন চলচ্চিত্র পরিচালক স্বামী সৃজিত এবং মেয়ে আয়রার সঙ্গে। সৃজিত পাঞ্জাবিতে বাঙালি বাবু সেজেছেন।

মিথিলা সকালে স্নান সেরে, খোলা চুলে, লাল পেড়ে সাদা খোলের শাড়ি পরেছেন। কপালে লাল টিপ। বাংলা নতুন বছরের নতুন সূর্যের মতোই লাল টকটকে! তিনি কলকাতায় বসে মিস করছেন পান্তা-ইলিশ, রমনা পার্ক, নানা জেলার শোভাযাত্রা।

মিথিলার ভাষ্য, ‘এবার আমি এপার বাংলায়। বিয়ের পর এ বছরই আমি পহেলা বৈশাখে প্রথম শ্বশুরঘরে। এ বছর আমি শহর কলকাতায়। সেখানে পান্তা ভাত আর ইলিশ মাছ ভাজা থাকবে না। থাকবে না ঢাকার দিগন্তবিস্তৃত রমনা পার্ক। যার বটমূলে ভোর থেকে নানা জেলার শোভাযাত্রা এসে জমায়েত হয়। যেখানে গোটা ঢাকা শহর পাত পেড়ে বসে যায় পান্তা-ইলিশ খেতে। কলকাতা, তুমি কি আমায় দিতে পারবে আমার ‘দ্যাশ’-এর রমনা বটমূলের স্বাদ, গন্ধ, স্মৃতি?’

তিনি আরও বলেন, “আমাদের বাংলাদেশে বাংলা নববর্ষ জাতীয় স্তরের উৎসব। এক সপ্তাহ ধরে চলে তার প্রস্ততি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ছাত্র-ছাত্রীরা রাত জেগে বানান নানা ধরনের মুখোশ, পোস্টার, লতা-পাতায় সাজানো ফেস্টুন। সেই সব নিয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রা ভোর থেকে। সবার পরনে লাল পাড়, সাদা শাড়ি। কপালজুড়ে টিপ। গলায়, ‘এসো হে বৈশাখ গান’। সংসদ ভবনের সামনের লম্বা রাস্তাজুড়ে দেশের সবচেয়ে বড় আল্পনা। রমনা মাঠসহ সমস্ত উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে পান্তা-ইলিশ পর্ব। বন্ধু, পরিজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ। তার পরে বাড়ি ফিরে দুপুরে রকমারি ভর্তা দিয়ে ভাত। এগুলো যে না দেখেছে, সে বুঝবে না এর ভিতরে কতখানি শান্তি, তৃপ্তি লুকিয়ে।’

মেয়ে আইরাকেও বৈশাখী সাজ শিখিয়েছেন জানিয়ে মিথিলা বলেন, ‘আমার মেয়ে দুই বাংলার নববর্ষ দেখতে দেখতে বড় হচ্ছে। শিখেছে, ইংরেজির ১২ মাসের মতোই বাংলাতেও ১২ মাস রয়েছে। আর বাঙালির আছে ১২ মাসে তেরো পার্বণ। সেই পার্বণের শুরু পহেলা বৈশাখ দিয়ে। মেয়েকে আমার মতো করেই সাজতে শিখিয়েছি। আগামীতে পহেলা বৈশাখের ভোরে আইরার সাজেও যাতে থাকে লাল পেড়ে ঢাকাই শাড়ি। কপালে লাল টিপ।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights Reserved
Developed By Cyber Planet BD