Home Privacy Policy About Contact Disclimer Sitemap
নোটিশ :
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ! সারাদেশে সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে । যোগায়োগ করুন : ০১৭৪০৭৪৩৬২০
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত সেবিকা খাতের টাকা আত্মসাৎ, দুদকের মামলা

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত সেবিকা খাতের টাকা আত্মসাৎ, দুদকের মামলা

নিউজ ডেস্ক :         দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধীনস্থ নার্সিং কলেজে স্বাস্থ্য খাতের বরাদ্দকৃত ২ কোটি ১৯ লাখ ৬৯ হাজার ৪২৮ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দিনাজপুর সমন্বিত আঞ্চলিক দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয়ের (দুদক) উপ-পরিচালক আবু হেনা মো. আশিকুর রহমান দৈনিক আমাদের সময়কে জানান, দুদকের সহকারী পরিচালক আহসানুল কবীর পলাশ বাদী হয়ে গতকাল শনিবার রাতে তার কার্যালয়ে এ মামলাটি দায়ের করেছেন। মামলায় পুলিশের গ্রেপ্তারকৃত ২ আসামি দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ক্যাশিয়ার আমিরুল ইসলাম (৩১) ও দিনাজপুর হিসাব রক্ষণ কার্যালয়ের অডিটর মাহফুজার রহমানকে (৪৮) আসামি করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ওই ২ আসামিকে দুদকের উপ-পরিচালক নিজে তদন্তকারী কর্মকর্তার দায়িত্ব নিয়ে তাদেরকে পুনরায় গ্রেপ্তার দেখানোর জন্য আজ রোববার দুপুর ২টায় দিনাজপুর জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহাম্মেদ ভূঞার আদালতে আবেদন করেছেন। ওই ২ আসামিকে অর্থ আত্মসাতের বিষয় জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য খুব শিগগিরই আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

উল্লেখ্য যে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত অর্থ দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ক্যাশিয়ার আমিরুল ইসলাম ও জেলা হিসাব রক্ষণ অধিদপ্তরের অডিটর মাহফুজুর রহমান দুজন যোগসাজস করে আরও অন্যান্যদের সহযোগিতায় গত ২০১৮ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি থেকে গত ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত বিভিন্ন সময় ভুয়া ভাউচার, বিল প্রস্তুত এবং ডিজিটাল কারচুপির মাধ্যমে ভুয়া এনআইডি ব্যবহার করে সেবিকা খাতের ২ কোটি ১৯ লাখ ৬৯ হাজার ৪২৮ টাকা আত্মসাৎ করে।

বিষয়টি হিসাব অধিদপ্তর অবগত হয়ে দিনাজপুর জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তাকে মামলা করার নির্দেশ দেয়। জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে গত ১ ফেব্রু য়ারি রাতে কোতয়ালী থানায় এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলাটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ও দুদক আইনে একই সঙ্গে দায়ের করা হয়। দুদকের আওতাভুক্ত মামলা হয় দুদক পুনরায় বাদী হয়ে এই ঘটনায় অপর একটি মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের যে অপরাধ রয়েছে সে বিষযে পুলিশের তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশ পরিদর্শক মো. ইমাম জাফর তদন্ত কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন। এই ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত যারা আছে প্রত্যেকে শনাক্ত করে আইনের আওতায় নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights Reserved
Developed By Cyber Planet BD